মোদিবিরোধী বিক্ষোভ: দ্বিতীয় দিনে মারা গেলেন পাঁচজন, দুই দিনে দশ

জেসমিন পাপড়ি
ঢাকা
2021-03-27
Share
মোদিবিরোধী বিক্ষোভ: দ্বিতীয় দিনে মারা গেলেন পাঁচজন, দুই দিনে দশ গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দিতে মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠাতা হরিচাঁদ ঠাকুরের মন্দিরে পূজা দিচ্ছেন বাংলাদেশ সফররত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ২৭ মার্চ ২০২১।
[এএফপি/ভারতীয় প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো]

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের শেষ দিন, শনিবারেও বাংলাদেশে তাঁর সফরের প্রতিবাদে বিক্ষোভকারীদের সাথে পুলিশ-বিজিবি’র সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। 

শনিবার সন্ধ্যার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এই পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল কর্মকর্তারা। এ নিয়ে মোদিবিরোধী বিক্ষোভে দুই দিনে ১০ জনের মৃত্যু হলো।

এর আগে শুক্রবার বাংলাদেশে মোদির সফরের প্রথম দিন বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামে চারজন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একজন নিহত হন।

“সংঘর্ষের ঘটনায় এখন পর্যন্ত এই হাসপাতালে পাঁচজনকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে,” শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে বেনারকে জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রানা নুরুস শামস। 

তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে আহতের সঠিক সংখ্যা বলা যাচ্ছে না। তারা সংখ্যায় অনেক।”

নিহতদের মধ্যে “সন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তিনজনকে হাসপাতালে আনা হয়,” জানিয়ে এই হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন সাংবাদিকদের বলেন, “তবে হাসপাতালে আনার আগেই তাঁদের মৃত্যু হয়।”

“সন্ধ্যার পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো দুজন মারা যায়,” বলেন তিনি।

শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার “বেশ কিছু স্থানে সংঘর্ষ চলছিল,” জানিয়ে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন রাত নয়টার দিকে বেনারকে বলেন, “হতাহতও আছে। তবে সঠিক সংখ্যাটা বলা যাচ্ছে না।”

“পরিস্থিতি এখন কিছুটা স্বাভাবিক,” বলেন তিনি। 

হাসপাতালের তথ্যমতে, শনিবার নিহতরা হলেন; জুরু আলম (৩৫), বাদল মিয়া (২৪), সুজন মিয়া (২২), কাউসার মিয়া (২৪) ও জোবায়ের (১৪)। 

এর আগে শুক্রবার বিক্ষোভে অংশ নেওয়া হেফাজতে ইসলামসহ ইসলামপন্থী দলের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশ ও সরকারি দলের কর্মীদের সংঘর্ষে পাঁচজনের মৃত্যু ছাড়াও আহত হন শতাধিক, যাদের মধ্যে সাংবাদিক ও পুলিশও রয়েছেন।

অব্যাহত প্রতিবাদের মধ্যেই দুদিনের সফরের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে শনিবার রাত নটার দিকে ঢাকা ছেড়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ঢাকা ছাড়ার পর টুইট বার্তায় মোদি জানান, “আমার সফরকালে বাংলাদেশের জনগণ যে আন্তরিকতা দেখিয়েছে তার জন্য আমি তাঁদের ধন্যবাদ জানাই। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তাঁর উষ্ণ আতিথেয়তার জন্য ধন্যবাদ জানাই। আমার বিশ্বাস এই সফর আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে।” 

Photo-02.jpg
শুক্রবার মোদিবিরোধী বিক্ষোভ কর্মসূচিতে হতাহতের ঘটনার প্রতিবাদে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সামনে হেফাজতে ইসলামের প্রতিবাদ সমাবেশ। ২৭ মার্চ ২০২১। [সাবরিনা ইয়াসমীন/বেনারনিউজ]

বিক্ষোভ অব্যাহত, বিজিবি মোতায়েন

শুক্রবারের হতাহতের ঘটনার জেরে শনিবার বিক্ষোভ কর্মসূচি ও রোববার হরতালের ডাক দেয় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শনিবার ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ অব্যাহত রাখেন হেফাজতে ইসলামের সমর্থকরা। পরিস্থিতি সামাল দিতে ঢাকাসহ সারাদেশে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

এ ছাড়াও সারা দেশের পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানান পুলিশ সদর দপ্তরের মুখপাত্র এবং সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) সোহেল রানা।

এদিকে রোববার ডাকা হরতালে বাধা দিলে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নেতারা।

শনিবার রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদে পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশে অংশ নিয়ে এ কথা জানান হেফাজতে ইসলামীর যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক। 

হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের অবরোধে প্রায় দুদিন ধরে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। হেফাজত কর্মীরা সড়কে ইটের দেওয়াল বানিয়ে ও বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে অবস্থান নিয়েছে। পুরো এলাকায় জুড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। 

এ বিষয়ে চট্টগ্রামের হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাদাত হোসেন বেনারকে বলেন, “হেফাজত কর্মীরা রাস্তায় অবস্থান নেওয়ার কারণে যান চলাচল এখনো স্বাভাবিক হয়নি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়েন আছে।” 

সভা-সমাবেশের অধিকার রক্ষার আহবান

শুক্রবারের সংঘর্ষের ঘটনার প্রেক্ষিতে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ ও বিক্ষোভকারীদের সভা-সমাবেশ করার অধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। 

শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংস্থাটির দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক গবেষক সুলতান মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, “বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ সচরাচর যে ধরনের আচরণ করে, চট্টগ্রাম ও ঢাকায়ও আমরা তেমন সহিংসতার ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছি।” 

“শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের অধিকার হামলার শিকার হচ্ছে। বিশেষ করে করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে এ ধরনের রক্তাক্ত দমন-নিপীড়ন চালানো হচ্ছে,” বলেন তিনি। 

ফেসবুক বন্ধ?

বাংলাদেশে মোদিবিরোধী বিক্ষোভের প্রথম দিন শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও মেসেঞ্জার কাজ করছে না বলে অভিযোগ করছেন ব্যবহারকারীরা। 

বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানায়, এ উপলক্ষে শনিবার ফেসবুকের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, “আমরা অবগত আছি যে বাংলাদেশে আমাদের সেবা বিঘ্নিত হয়েছে।”

“আমরা বিষয়টি আরো ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করছি, আশা করি খুব শীঘ্রই আবার পূর্ণ সেবা ফিরে আসবে,” জানায় ফেসবুক। 

তবে সরকারের পক্ষ থেকে ফেসবুক সেবা বন্ধ করা হয়েছে কি না এই বিষয়ে জানতে বেনারের পক্ষ থেকে একাধিকবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান ও প্রতিষ্ঠানে গণমাধ্যম শাখায় যোগাযোগ করেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। 

000_96V3WV.jpg
গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন বাংলাদেশ সফররত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (মাঝখানে), বঙ্গবন্ধুকন্যা ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ডানে) ও বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানা। ২৭ মার্চ ২০২১। [এএফপি/ভারতীয় প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো]

বাংলাদেশে মোদির দ্বিতীয় দিন

শনিবার সকালে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে যশোরেশ্বরী মন্দির পরিদর্শনে যান নরেন্দ্র মোদি। সেখান থেকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায় মতুয়া সম্প্রদায়ের তীর্থস্থান ওড়াকান্দি মন্দির পরিদর্শন করে ঢাকায় ফেরেন তিনি।

ওড়াকান্দি হলো মতুয়া মতবাদের প্রবক্তা হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মস্থান। ভারত-বাংলাদেশ মিলিয়ে মতুয়া সম্প্রদায়ের পাঁচ কোটির বেশি অনুসারী রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। এর মধ্যে প্রায় তিন কোটির বসবাস পশ্চিমবঙ্গে। 

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) জানায়, শনিবার বিকেলে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শীর্ষ বৈঠকে দুদেশের মধ্যে পাঁচটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।

এ ছাড়া যৌথভাবে সাতটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং স্মারক ডাকটিকিটের মোড়ক উন্মোচন করেন দুই প্রধানমন্ত্রী।

এসময় ভারতে উৎপাদিত করোনাভাইরাসের টিকা কোভিশিল্ডের ১২ লাখ ডোজ এবং ১০৯টি অ্যাম্বুলেন্স বাংলাদেশ সরকারকে উপহার হিসেবে হস্তান্তর করেন নরেন্দ্র মোদি। 

পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন শুরু

শনিবার থেকে পশ্চিমবঙ্গে শুরু হয়েছে মোট আট দফার বিধানসভা নির্বাচন। এই নির্বাচনে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস এবং কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন নরেন্দ্র মোদির ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দিচ্ছেন নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা।

এ উপলক্ষে বাংলাদেশ থেকে এক টুইট বার্তায় সেখানকার ভোটারদের “রেকর্ড সংখ্যায় ভোটাধিকার প্রয়োগের অনুরোধ” জানান নরেন্দ্র মোদি। 

শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে মোদি একটি বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকা ছেড়ে যান বলে জানায় সরকারি বার্তাসংস্থা বাসস। এর আগে তিনি বাংলাদেশ সফর করেছিলেন ২০১৫ সালের জুনে।

মন্তব্য (0)

সব মন্তব্য দেখুন.

মন্তব্য করুন

নিচের ঘরে আপনার মন্তব্য লিখুন। মন্তব্য করার সাথে সাথে তা প্রকাশ হয় না। একজন মডারেটর অনুমোদন দেবার পর মন্তব্য প্রকাশিত হয়। বেনারনিউজের নীতিমালা অনুসারে প্রয়োজানে মন্তব্য সম্পাদনা হতে পারে। প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য বেনারনিউজ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয়বস্তুর সাথে প্রাসঙ্গিক থাকুন।

পুর্ণাঙ্গ আকারে দেখুন