র‍্যাবের ওপর অবরোধে কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে, মার্কিন আইনপ্রণেতাদের জানালেন সংসদীয় প্রতিনিধিরা

কামরান রেজা চৌধুরী
2022.05.19
ঢাকা
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
র‍্যাবের ওপর অবরোধে কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে, মার্কিন আইনপ্রণেতাদের জানালেন সংসদীয় প্রতিনিধিরা ঢাকায় জামাতে ইসলামির ডাকা হরতাল চলাকালে পুলিশের হাতে আটক এক ব্যক্তিকে লাঠি দিয়ে পেটাচ্ছেন র‍্যাবের এক সদস্য। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩।
[রয়টার্স]

আপডেট: ১৯ মে ২০২২। ইস্টার্ন সময় রাত ০৯:০০

র‍্যাবের ওপর অবরোধের কারণে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও যন্ত্রপাতি না পাওয়ায় সংস্থাটির অপারেশন কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে মার্কিন আইনপ্রণেতাদের জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র সফররত সংসদীয় দল।

চার সদস্যের প্রতিনিধিদল বুধবার কংগ্রেসম্যান স্টিভ চ্যাবট ও সিনেটর টেড ক্রুজ এবং বৃহস্পতিবার কংগ্রেসম্যান ডুইট ইভানস এর সাথে ওয়াশিংটন ডিসিতে বৈঠক করেন বলে বৃহস্পতিবার বেনারকে জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও প্রতিনিধিদলের নেতা ফারুক খান।

তাঁরা মার্কিন আইনপ্রণেতাদের জানিয়েছেন, র‍্যাবের ওপর আরোপিত অবরোধ প্রত্যাহার করা না হলে দীর্ঘ মেয়াদে বাংলাদেশের নিরাপত্তাও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, জানান ফারুক খান।

তিনি বলেন, “নিষেধাজ্ঞার কারণে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমরা বর্তমানে র‍্যাবের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও যন্ত্রপাতি পাচ্ছি না, যার প্রভাব পড়ছে বাহিনীর দক্ষতার ওপর। এতে র‍্যাবের অপারেশন ও কার্যক্রম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।”

“এর ফলে দীর্ঘ মেয়াদে বাংলাদেশের নিরাপত্তাও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। কারণ বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, মানবপাচার ও মাদক সংক্রান্ত সমস্যা মোকাবেলায় র‍্যাব একটি অগ্রবর্তী বাহিনী,” বলেন ফারুক খান।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‍্যাব) প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও প্রশিক্ষণের এক উল্লেখযোগ্য অংশ পেয়ে থাকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে। গত ডিসেম্বর মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে র‍্যাব ও এর সাত বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।

অবরোধ আরোপের পর থেকে জঙ্গিবাদ দমনসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে র‍্যাবের ইতিবাচক ভূমিকা উল্লেখ করে প্রতিটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকেই অবরোধ প্রত্যাহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ করে আসছে বাংলাদেশ।

গত এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেনের সাথে বৈঠকে নিষেধাজ্ঞা ‘সঠিক নয়’ বলে দাবি করেছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন।

র‍্যাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে মার্কিন তিন আইনপ্রণেতা সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন বলেও জানান ফারুক খান।

নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়ে তাঁরা কতটা আশাবাদী এমন প্রশ্নের উত্তরে ফারুক খান বলেন, “এই বৈঠকগুলো প্রক্রিয়ার একটি অংশ।”

পরবর্তীতে মার্কিন আইনপ্রণেতাদের র‍্যাবের কার্যক্রম সম্পর্কে লিখিত বিবরণ সরবরাহ করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, “এর পর যদি তাঁদের কোনো প্রশ্ন থাকে তবে আমরা সেগুলোরও উত্তর দেবো।”

“আলোচনা অব্যাহত থাকবে। আশা করি এক পর্যায়ে অবরোধ প্রত্যাহার হবে,” বলেন ফারুক খান।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সাথে বৈঠকের বিষয়ে কংগ্রেসম্যান স্টিভ চ্যাবট ও ডুইট ইভানস এবং সিনেটর টেড ক্রুজ এর দপ্তরে মন্তব্যের জন্য বেনারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করে তাৎক্ষণিক কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্র সফররত বাংলাদেশের সংসদীয় প্রতিনিধিদলের অন্য সদস্যরা হলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ, নাহিম রাজ্জাক ও কাজী নাবিল আহমেদ।

গতবছর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস ১০ ডিসেম্বর র‍্যাব এবং এর বর্তমান ও সাবেক সাত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম, খুন, নির্যাতনের অভিযোগে অবরোধ আরোপ করে মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ। এই সাত কর্মকর্তার মধ্যে রয়েছেন বর্তমান পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ।

তবে সরকারের পক্ষ থেকে বরাবরই র‍্যাব সম্পর্কিত অভিযোগগুলো অস্বীকার করে বলা হচ্ছে, র‍্যাবের যেসকল সদস্য এধরনের কর্মকাণ্ডে যুক্ত তাঁদের চাকুরিচ্যুত করাসহ বিভিন্ন ধরণের আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়।

অন্যান্য দ্বিপাক্ষিক বিষয়

যুক্তরাষ্ট্রের তিন আইন প্রণেতার সাথে বৈঠকে বাংলাদেশের টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, দক্ষ কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনা এবং গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার আরো উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরা হয় বলে বুধবার এক বিবৃতিতে জানায় ওয়াশিংটন ডিসির বাংলাদেশ দূতাবাস।

করোনা মহামারি মোকাবেলায় ৬৪ মিলিয়ন ডোজ টিকাসহ অন্যান্য বিষয়ে সহায়তার জন্য বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানানো হয় জানিয়ে ফারুক খান বলেন, “করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় সফল গুটিকয়েক দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। গত এক মাসে দেশে করোনায় কোনো মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। এই সফলতার পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা উল্লেখযোগ্য।”

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার জন্য মার্কিন সহায়তার কথা উল্লেখ করে তাঁদের নিরাপদে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করতে মিয়ানমারকে সম্ভাব্য সব উপায় রাজি করাতে মার্কিন আইনপ্রণেতাদের অনুরোধ করা হয় বলে জানানো হয় বিবৃতিতে।

এতে বলা হয়, বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবার আশ্বাস দেন মার্কিন আইন প্রণেতারা।

বৈঠকে, যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি রাশেদ চৌধুরীকে প্রত্যর্পণের জন্য সংসদীয় প্রতিনিধিদল বাংলাদেশের অনুরোধ পুনর্ব্যক্ত করেন বলে জানানো হয় দূতাবাসের বিজ্ঞপ্তিতে।

রাশেদ চৌধুরীকে প্রত্যর্পণের বিষয়টি অনেক দিন ধরেই আলোচনা হচ্ছে, চলতি বৈঠকের পর এ বিষয়ে কতটা আশাবাদী এমন প্রশ্নের জবাবে ফারুক খান বেনারকে বলেন, “কংগ্রেসম্যান স্টিভ চ্যাবট একই সাথে হাউজ জুডিশিয়ারি কমিটির সদস্য। তিনি বলেছেন, জুডিশিয়ারি কমিটিতে বিষয়টি উত্থাপন করবেন। আমরা আশাবাদী।”

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক অ্যাসিসটেন্ট সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু’র সাথে বৈঠক করেন।

বৈঠকে মানবাধিকার, ২০২৩ সালের নির্বাচন ও কর্মসংস্থান বিষয়ে আলোচনা হয় বলে এক টুইট বার্তায় জানায় মার্কিন দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক ব্যুরো।

অধিকতর উন্নয়ন ও কৌশলগত অংশীদারিত্ব আরো শক্তিশালী করার জন্য দুটি দেশ যৌথভাবে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কাজ করে যাচ্ছে বলে জানানো হয় ওই টুইট বার্তায়।

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।