সংসদীয় দল যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছে, লক্ষ্য র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার

কামরান রেজা চৌধুরী
2022.05.09
ঢাকা
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
সংসদীয় দল যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছে, লক্ষ্য র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার ঢাকার মোহাম্মদপুরের বছিলা এলাকায় সন্দেহজনক এক জঙ্গি আস্তানার কাছে র‍্যাবের সতর্ক অবস্থান। ২৯ এপ্রিল ২০১৯।
[বেনারনিউজ]

র‌্যাব এবং এর সাত বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষ্যে আগামী সপ্তাহে আমেরিকা সফরে যাচ্ছে একটি সংসদীয় প্রতিনিধি দল।

এখন পর্যন্ত তারিখ নির্ধারিত না হলেও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ফারুক খানের নেতৃত্বে চার সদস্যের প্রতিনিধিদল আগামী ১৫ তারিখে ঢাকা ছাড়তে পারেন বলে সোমবার বেনারকে জানান প্রতিনিধিদলের অন্যতম সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ।

দলের অপর দুই সদস্য হলেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও সাংসদ নাহিম রাজ্জাক। প্রতিনিধি দলের সকলেই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য।

গুম, খুন ও নির্যাতনের অভিযোগে গত ১০ ডিসেম্বর মার্কিন ট্রেজারি বিভাগের আরোপিত অবরোধ প্রত্যাহারের ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তৎপরতা তেমন কাজে না আসায় এবার সংসদীয় দলকে সেদেশের কংগ্রেসম্যানদের সাথে বৈঠকের ব্যবস্থা করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বিরোধীদল বিএনপি নেতাদের মতে, আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে র‌্যাবের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করাতে চায় সরকার।

তবে আওয়ামী লীগের অভিযোগ, বিএনপির রাজনীতি নেই বিধায় মার্কিন অবরোধের ওপর ভিত্তি করে রাজনীতি করতে চায় তারা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ফারুক খান সোমবার বেনারকে বলেন, “যাত্রার তারিখ এখনও নির্ধারিত হয়নি। তবে আমরা পাঁচ থেকে সাতদিন যুক্তরাষ্ট্র সফর করব।“

“এই সফরে আমরা বাংলাদেশ-আমেরিকা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সকল দিক নিয়ে আলোচনা করব। দুই দেশের সম্পর্ক কীভাবে আরও এগিয়ে নেয়া যায় সে বিষয়ে আমরা মার্কিন কংগ্রেসম্যানদের সাথে আলোচনা করব,” বলেন ফারুক খান।

র‌্যাবের ওপর মার্কিন ট্রেজারি বিভাগের আরোপিত অবরোধ প্রত্যাহার নিয়ে মার্কিন কংগ্রেস এবং সেদেশের সরকারের প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা হবে কি না-এমন প্রশ্নের উত্তরে ফারুক খান বলেন, “আলোচনা তো অবশ্যই হবে। তারা একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে বিষয়ে আমরা আমাদের কথা বলবো। আমরা চাইব যে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে সেটি প্রত্যাহার হোক।”

এই সফর খুব গুরুত্বপূর্ণ

প্রতিনিধিদল মার্কিন ফরেন রিলেশনস কমিটির সদস্যদের সাথে মত বিনিময় করবে জানিয়ে সফরদলের আরেক সদস্য নাহিম রাজ্জাক বেনারকে বলেন, “এই সফর খুব গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ-আমেরিকা সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। এই সম্পর্ক কীভাবে আরও এগিয়ে নেয়া যায় সেবিষয়ে আমরা আলোচনা করব।”

“এ ছাড়াও, কিছু বিষয় রয়েছে যেটি নিয়ে বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত পার্থক্য রয়েছে সেগুলো নিয়ে আমরা আমাদের অবস্থান তুলে ধরব,” বলেন নাহিম রাজ্জাক।

র‌্যাবের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আলোচনা হবে কি না জানতে চাইলে নাহিম রাজ্জাক বলেন, “অবশ্যই আমরা এই বিষয়ে তাঁদের সাথে কথা বলব। তাঁরা আমাদের কথা না শুনে অবরোধ আরোপ করেছে।”

তিনি বলেন, “আমরা এ ব্যাপারে তাদেরকে আমাদের অবস্থান সম্পর্কে অবহিত করব।“

আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে “হয়তো শ্রমিকের অধিকার, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ইত্যাদি বিষয়ে জানতে চাওয়া হবে,” জানিয়ে নাহিম রাজ্জাক বলেন, “আমাদের অবস্থান সুস্পষ্ট, আমরা আলোচনা করে সমস্যার করতে চাই।”

“কিন্তু আমাদের কথা তো শুনতে হবে। আমরা আমাদের কথা তাদের কাছে সুনির্দিষ্টভাবে তুলে ধরবো,” যোগ করেন নাহিম রাজ্জাক।

সংসদীয় প্রতিনিধিদলের সফরের সুনির্দিষ্ট তারিখ ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে কাজ কর হচ্ছে বলে বেনারকে জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমেরিকা অনুশাখার মহাপরিচালক নাঈম উদ্দিন আহমেদ।

তবে বেনারের হাতে আসা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি চিঠি অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের হাউজ সাব-কমিটি অন এশিয়া, দি প্যাসিফিক, সেন্ট্রাল এশিয়া অ্যান্ড ননপ্রলিফারেশন এর চেয়ারম্যান অ্যামি বোরা প্রতিনিধিদলকে ১৬ মে স্বাগত জানাবেন।

তৎপরতার কারণ ‘আগামী নির্বাচন

র‌্যাবের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আরোপিত অবরোধ প্রত্যাহার করার জন্য সরকারের তৎপর হওয়ার অন্যতম কারণ “আগামী নির্বাচন” বলে সোমবার বেনারের কাছে মন্তব্য করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তারেক এম টি রহমান।

তিনি বলেন, “র‌্যাবের ওপর দেয়া অবরোধের কারণে বর্তমানে পুলিশ অথবা র‌্যাব অথবা অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরা সরকারের নির্দেশে গুম-খুনের ব্যাপারে নির্দেশ মানতে অমনোযোগী হবে।”

“তবে, এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হলে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা সরকারের নির্দেশ মানবে,” বলেন তারেক এম টি রহমান।

এদিকে র‌্যাবের ওপর অবরোধ আরোপ সরকারের জন্য “বিব্রতকর” বলে সোমবার বেনারকে জানান বিএনপি দলীয় সাংসদ হারুনুর রশিদ।

তিনি বলেন, “সরকার এই বিব্রতকর পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে চায়। সেকারণে তারা মার্কিন সরকার ও কংগ্রেস সদস্যদের সাথে বৈঠক করতে যাচ্ছে।”

“মার্কিন সরকারের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের অন্যতম উদ্দেশ্য হলো আগামী নির্বাচন। সেকারণেই তারা এই অবরোধ প্রত্যাহার করাতে মরিয়া,” হারুনুর রশিদ।

তবে বিএনপি ও বিশ্লেষকদের ধারণাকে নাকচ করে আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খান সোমবার বেনারকে বলেন, “আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আরও প্রায় দুই বছর পর। সুতরাং, এখন এই বিষয়ে কথা বলে বিএনপি জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চায়।”

তিনি বলেন, “বিএনপি’র কোনো রাজনৈতিক ইস্যু নেই। এখন তারা মার্কিন অবরোধকে কাজে লাগিয়ে রাজনীতি করছে,” বলেন তিনি।

“আগামী নির্বাচনের আগে দেশের উন্নয়ন আরও দৃশ্যমান হবে এবং দেশের মানুষ অবশ্যই আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করবে,” বলেন শাজাহান খান।

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।