আফ্রিকার সাত দেশ থেকে ফিরলে নিজ খরচে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন

জেসমিন পাপড়ি
2021.12.03
ঢাকা
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
আফ্রিকার সাত দেশ থেকে ফিরলে নিজ খরচে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন নিজেদের মালামাল মাথায় বহন করে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বের হয়ে আসছেন বিদেশ ফেরত দুইজন যাত্রী। ২৭ নভেম্বর ২০২১।
[বেনারনিউজ]

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘অমিক্রনের’ বিস্তার ঠেকাতে আফ্রিকার সাত দেশ থেকে ফেরা যাত্রীদের কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করেছে বাংলাদেশ। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) বৃহস্পতিবার রাতে এ সংক্রান্ত আদেশে জানিয়েছে, ওই সাত দেশ থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের নিজ খরচে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

বাংলাদেশ সময় শনিবার দুপুর থেকে এ নিয়ম কার্যকর হবে বলে জানায় বেবিচকের ফ্লাইট স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড রেগুলেশন বিভাগ। আফ্রিকার এই সাত দেশ হচ্ছে; বতসোয়ানা, লেসোথো, ইসোয়াতিনি, ঘানা, নামিবিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, এসব দেশ থেকে কেউ সরাসরি বাংলাদেশে এলে, অথবা গত ১৪ দিনের মধ্যে এসব দেশের কোনোটিতে ভ্রমণ করে থাকলে বাংলাদেশে আসার পর তাঁদেরকে সরকার নির্ধারিত কিছু হোটেলে নিজ খরচে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। সেজন্য বাংলাদেশের পথে রওনা হওয়ার আগেই হোটেল বুকিং দিতে হবে।

এ ছাড়া পৃথিবীর সব দেশ থেকেই বাংলাদেশে আসতে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আরটি পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট থাকতে হবে, যা আগে ৭২ ঘণ্টা ছিল। তবে ১২ বছরের কম বয়সীদের ক্ষেত্রে এ বাধ্যবাধকতা থাকবে না।

বাংলাদেশে আসার পর হোটেলে থাকা অবস্থায় সপ্তম ও চতুর্দশ দিনে করোনাভাইরাস শনাক্তের আরটিপিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। কারো সংক্রমণ ধরা পড়লে তাঁকে হাসপাতালে আইসোলেশনে রাখা হবে।

বৃহস্পতিবার ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থাপিত বিদেশগামীদের করোনাভাইরাস নমুনা পরীক্ষাগার পরিদর্শনে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, যাদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হবে, তাঁদের পাসপোর্ট রেখে দেওয়া হবে। এমনকি কোনো হোটেল থেকে পালিয়ে গেলে ওই হোটেলকেও জরিমানা করা হবে।

যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদেরও এমন ব্যবস্থা দরকার

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘অমিক্রন’ দক্ষিণ আফ্রিকায় বেশি পাওয়া গেছে জানিয়ে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বেনারকে বলেন, “এই দেশের সাথে বতসোয়ানাসহ যেসব দেশের খোলা সীমান্ত আছে সেসব দেশে সামাজিক সংক্রমণ হয়েছে ধারণা করা হচ্ছে। এই জন্য আফ্রিকার সাতটি দেশ থেকে আসা যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে রাখার সিদ্ধান্ত অত্যন্ত যৌক্তিক।”

“তবে আফ্রিকার এসব দেশের বাইরে যুক্তরাজ্যেও অমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট বেশি ধরা পড়েছে। তাই এই দেশটি (যুক্তরাজ্য) থেকে যারা আসছে তাদেরও এই ধরনের ব্যবস্থা নেয়া দরকার,” বলেন তিনি।

এর আগে গত সোমবার দক্ষিণ আফ্রিকায় ধরা পড়া করোনার এই নতুন ধরনের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে কয়েকটি দেশ থেকে আসা যাত্রীদের স্ক্রিনিং, জনসমাগম নিরুৎসাহিত করা এবং পর্যটন, বিনোদন কেন্দ্র, রেস্তোরাঁয় ভিড় এড়ানোসহ ১৫ নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অমিক্রনের বিস্তার ঠেকাতে বিমানবন্দরগুলোতে বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের স্ক্রিনিংসহ দেশে সতর্কতা বৃদ্ধি ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করার সক্ষমতা বাড়াতে হবে।

এদিকে এ পর্যন্ত অমিক্রনে মৃত্যুর কোনো খবর পাওয়া যায়নি বলে শুক্রবার জানালেও এই ধরনটির বিষয়ে ইতিমধ্যে সকল দেশকে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি বলছে, অমিক্রন আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর ঝুঁকি অনেক বেশি।

করোনার এই শক্তিশালী নতুন ধরনটি শনাক্ত করার জন্য অমিক্রনের নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করা দরকার বলে বেনারকে জানান সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ডা. মুশতাক হোসেন।

“বেশি করে জিনোম সিকোয়েন্স না করলে অমিক্রন ধরা পড়বে না,” জানিয়ে তিনি বলেন, “যত আগে এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করা যাবে আমরা তত আগে সাবধান হতে পারব এবং ক্ষয়ক্ষতি কম হবে।”

এর আগে গত রোববার কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি অমিক্রনের বিস্তার ঠেকাতে ভ্রমণ সতর্কতা জারির পাশাপাশি সব ধরনের সমাবেশে জনসমাগম সীমিত করার সুপারিশ করে। পাশাপাশি মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানা নিশ্চিত করা এবং আবারও বিনামূল্যে কোভিড পরীক্ষার সুযোগ দেওয়ার কথাও কমিটির সুপারিশে বলা হয়।

ভারতে অমিক্রন শনাক্ত

গত ৮ নভেম্বর প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট অমিক্রন ভারতেও শনাক্ত হয়েছে। ভারতের কর্ণাটকে দুই ব্যক্তির দেহে অমিক্রন সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব লব আগরওয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে জানান।

এখনই সচেতন না হলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন' বা উদ্বেগজনক হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করোনাভাইরাসের এই ভ্যারিয়েন্টটি বাংলাদেশেও ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে অমিক্রনের কারণে পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেলে আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

করোনায় আরো তিনজনের মৃত্যু

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে দশমিক ১৬ শতাংশ।

শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদফতর করোনা বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৫ লাখ ৭৭ হাজার ৭০ জন। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ২৭ হাজার ৯৮৯ জন।

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।

পুর্ণাঙ্গ আকারে দেখুন