Follow us

ডট বাংলা ডোমেইনের ব্যবহার শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

ঢাকা থেকে জেসমিন পাপড়ি
2016-12-30
ই-মেইল করুন
মন্তব্য করুন
Share
বহু প্রতীক্ষার পর ডট বাংলা ডোমেইনের অধিকার পেয়েছে বাংলাদেশ।
বহু প্রতীক্ষার পর ডট বাংলা ডোমেইনের অধিকার পেয়েছে বাংলাদেশ।
বাসস

অবশেষে জনগণের জন্য উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে বহুল প্রত্যাশিত ডট বাংলা ডোমেইন। পূর্ব প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বিজয়ের মাসেই আনুষ্ঠানিকভাবে এটি উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলা ওয়েব সাইটের জন্য এটা দ্বিতীয় শীর্ষ পযার্য়ের কান্ট্রি ডোমেইন (টিএলডি)।

ডট বাংলা ডোমেইন পাওয়াকে ইন্টারনেট জগতে বাংলা ভাষার জয় হিসেবে দেখছেন ইন্টারনেট বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি মোস্তফা জব্বার বেনারকে বলেন, “এখন পর্যন্ত আমরা ইন্টারনেটের ডোমেইনে যা লিখি, তা রোমান হরফে। ডট বাংলা পাওয়ার অর্থ এখন থেকে ইন্টারনেটে আমরা বাংলা হরফে লিখতে পারব। এটা বাংলা ভাষার জন্য বিরাট বড় অর্জন।”

এর মাধ্যমে বাংলাদেশের পরিচিতি বাড়বে জানিয়ে তিনি বলেন, “বাংলা দিয়ে বাংলাদেশকে পরিচিত করতে পারব। বিশ্বজুড়েই এই পরিচিয়টা প্রতিষ্ঠিত হলো।”

বছরের শেষ দিন, শনিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে এক অনুষ্ঠানে ডট বাংলা ডোমেইনের উদ্বোধন করবেন বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা বাসস।

ডোমেইনটি উদ্বোধনের পর তা জনগণের মধ্যে বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের প্রথম কান্ট্রি কোড টপ-লেভেল ডোমেইন হল ডট বাংলা। বাংলা ভাষায় ওয়েব ঠিকানার জন্য এই ডোমেইন বোঝানো হয়। ইন্টারনেটে একটি রাষ্ট্রের জাতীয় পরিচয়ের স্বীকৃতিও ডোমেইনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। বাংলাদেশের প্রথম কান্ট্রি কোড ডোমেইন হলো ডট বিডি।

ইন্টারনেট করপোরেশন ফর অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নাম্বারস (আইসিএএনএন) বা আইকান ইন্টারনেটের ডোমেইন নাম ও ঠিকানা বরাদ্দ দিয়ে থাকে।

দীর্ঘ প্রক্রিয়ার পর গত ৪ অক্টোবর আইকানের কাছ থেকে ডট বাংলা ডোমেইন আনুষ্ঠানিকভাবে বরাদ্দ পায় বাংলাদেশ। এরপর থেকেই গ্রাহকদের মাঝে ডট বাংলা ডোমেইন বিতরণের প্রস্তুতি শুরু করে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)।

বিটিসিএলের পরিচালক (জনসংযোগ ও প্রকাশনা) মীর মোহাম্মদ মোরশেদ বেনারকে বলেন, “শনিবার উদ্বোধনের পরের দিন থেকে আগ্রহী গ্রাহকদের ডট বাংলা ডোমেইন বরাদ্দের প্রক্রিয়া শুরু হবে।”

তবে এর জন্য বেশ কিছু প্রক্রিয়া রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “বিটিসিএল থেকে ডোমেইনের জন্য আবেদনপত্র আহবান করা হবে। নির্দিষ্ট ফি পরিশোধ করে আগ্রহী গ্রাহকদের অনলাইনে আবেদন করতে হবে। সে অনুযায়ীই যাচাই-বাছাই শেষে ডোমেইন বরাদ্দ দেওয়া হবে।”

তবে সাধারণ গ্রাহকদের কাছে ডট বাংলা ডোমেইনটি পৌঁছে দিতে বিটিসিএলের এখনো কিছু অদক্ষতা রয়েছে বলে আভিযোগ করেছেন মোস্তফা জব্বার।

জানা যায়, ডট বাংলা ডোমেইনের জন্য আইকানে আবেদন করেছিল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এবং সিয়েরা লিয়ন। প্রতিষ্ঠানটির কাছে ডোমেইনটি পাওয়ার জন্য স্বপক্ষে জোরদার যুক্তি উপস্থাপন করে বাংলাদেশ।

এ বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম ফেসবুকের স্ট্যাটাসে লিখেছিলেন, “আইকানে আমরা বলেছি, বাংলাদেশ একমাত্র দেশ যারা মাতৃভাষা বাংলার জন্য সংগ্রাম করেছে, রক্ত দিয়েছে, শহীদ হয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবেও স্বীকৃতি পেয়েছে। তাই এ ভাষার উপর বাংলাদেশের জনগণের অধিকার সবার আগে।”

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে ডট বাংলা ডোমেইনটি জনগণের জন্য উন্মুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি।

বিটিসিএলের দেওয়া তথ্য উদ্ধৃত করে বাসস জানিয়েছে, বিডি ডোমেইনে নিবন্ধিত গ্রাহকের সংখ্যা সাড়ে ৩৬ হাজারে পৌঁছেছে।

পুর্ণাঙ্গ আকারে দেখুন